ইউটিউব ভিডিও মার্কেটিং এর বেসিক

YouTube Video Upload and Marketing

জাহাঙ্গীর আলম শোভন // ইউটিউব আজ ইন্টারনেট ব্যবহারকারীদের জীবনের অংশ হয়ে গেছে। আর ব্যবসায়ীদের ব্যবসায়ের হাতিয়ার হয়েছে, হয়েছে বিনোদন পিয়াসী মানুষদের থিয়েটার হল। এখন যারা ইউটিউবে ভিডিও আপলোড করেন তারা চান তাদের কাজের বিস্তৃতি ঘটাতে তাদের পণ্য সেবা বা বার্তা বেশী বেশী করে পৌছে দিতে। এর অনেকগুলো সুবিধার কারণে ভিডিও মার্কেটিং । আর এই কাজের জন্য ইউটিউব ক্রমশ জনপ্রিয় হয়ে উঠছে।

এর সুবিধাসমূহ:

১. টিভির মতোই চলমান এবং জীবন্ত ইমেজ দিয়ে বিজ্ঞাপন প্রচার করা যায়।
২. অন্যের কাছে কাছে ভিডিও সিডি বা ভিডিও মেইল পাঠানোর চেয়ে ইউটিউবে লোড করার পর লিংকটা পাঠালেই চলে তাতে কাঙ্ক্ষিত ব্যক্তি সহজে ভিডিওটি দেখতে পারে।
৩. ফেইসবুক সহ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করে সহজেই অনেকের চোখে ফেলা যায়। বিশেষ কারো দৃষ্টি আকর্ষণের জন্য কাউকে ট্যাগ করা যায়। ফলে কাঙ্ক্ষিত মানুষদের কাছে বিজ্ঞাপনটাকে সহজে পৌঁছানো যায়।
৪. ইউটিউবে যারা সরাসরি বিভিন্ন ভিডিও দেখেন তারাও এই ভিডিও দেখতে পারে।
৫. আপলোড করার সময় রিলেটেড বিষয় ও শব্দ ট্যাগ করলে এই বিষয়ে সার্চ দিয়ে যেসব ভিজিটর ভিডিও খোঁজে তারা সহজে এই ভিডিওর সন্ধান পেতে পারে।
৬. সহজে একজন গ্রাহক তার হাতের মোবাইল ফোনে এই ভিডিও দেখতে পারে।

কেমন ভিডিও আপলোড করবেন?

১. আপনার ভিডিওটি খুব বেশী ভালো কোয়ালিটির হবে তা নয় তবে তাই বলে যা তা ধরনের ভিডিও আপলোড করবেন না।
২. ভিডিও যত ছোট হবে তত এর বেশী দর্শক হবে। ৩০ সেকেন্ড থেকে দেড় মিনিটের ভিডিওগুলো সবচে বেশী দেখে মানুষ। এটা মাথায় রেখে তৈরি করুন।
৩. যদি আপনার বিষয়বস্তু এই সময়ের মধ্যে পরিষ্কার করতে না পারেন। বা অন্য ধরনের ভিডিও হয় । তবে ৩-৬ মিনিটের ভিডিও বানালেও তার একটা ১ মিনিটের শর্ট ভার্সন থাকতে পারে।
৪. একই বিষয়ে আবার অনেকগুলো ভিডিও আপলোড করা জরুরী নয়। কারণ এই বিষয়ে আপনার ভিডিওটা কত মানুষ দেখছে তা কিন্তু ইউটিউব কাউন্ট করছে। ফলে একই বিষয়ে অনেকগুলো ভিডিও লোড করলে আপনার ভিডিও ক্লিপপ্রতি দেখার হার কমে আসবে।
৫. এনজি (নট গুড) বা . র ফাইল সরাসরি আপলোড করবেন না। এতে আপনার অপেশাদারিত্ব এবং আপনার ভিডিও এডিটিং না জানার বিষয় অথবা আপনার কাছে এডিটিং টুল নেই বলে প্রমাণ হবে। এটা আপনার সক্ষমতা সম্পর্কে নেতিবাচক মেসেজ দেবে। সুতরাং কমবেশি এডিট করুন।
৬. ভিডিওতে অবশ্যই শুরুতে টেক্স ইমেজ দিয়ে ব্যানার দেবেন, অনুরূপ ভাবে শেষে একটা এন্ডিং ব্যানার দেবেন, আপনার কোম্পানি লোগো নাম ওয়েব দিতে ভুলবেন না।
৭. এতে কয়েকটা অংশ থাকলে প্রতিটা অংশের জন্য কভার ব্যানার বা কোনো সিম্বল ব্যবহার করুন।
৮. ভিডিও ৩০ সেকেন্ডর হোক আর ৩০ মিনিটের হোক তার মধ্যে কিছু ধারাবাহিকতা, একটা স্টোরি লাইন রেখে এডিট করবেন একটা চমক ধরে রাখবেন যেন মনে হয় সেটা সামনে আছে।
৯. অবশ্যই একটি গল্প থাকতে হবে আপনার ভিডিওতে। গল্পটির শুরু থাকবে, চরম অবস্থা থাকবে, থাকবে পরিনিতি। এটা ৬ সেকেন্ডর ভিডিও হলেও। এটা যদি হয় আপনার একটা ঈদের শুভেচ্ছা ভিডিও তবুও এই কথাটি মাথায় রাখুন, যতটা সম্ভব চমক দিয়ে এটা তৈরি করুন।
৯. সব সময় ভাবুন আপনি এর জন্য নতুন কিছু একটা দেখাবেন। এর জন্য ১০ আইডিয়া নোট করুন তারপর সব কেটেছেটে টপ আইডিয়াটা নিয়ে কাজ করুন।
১০. ভেরিফিকেশান আনার জন্য ফটো, কাটুন, আকাছবি, স্কেচ, এনিমেশন, গ্রাফিক্স, ডায়াগ্রাম ইত্যাদি ব্যবহার করার চেষ্টা করুন।
১১. একজনের মুখ অনেকক্ষণ দেখাবেন না। নেহায়েত প্রয়োজন হলে ফ্রেম পরিবর্তন করুন।

আপলোডের সময় করনীয়

১. আপনার ভিডিওর এমন একটি শিরোনাম ঠিক করুন যেটা ভিডিওর বিষয়বস্তুও সাথে মানানসই আবার আপনার ব্যবসার সাথেও ভালো যায় এমনকি এ ধরনের শব্দ লিকে ভিজিটরেও সার্চ করার সম্ভাবনা রয়েছে।
২. ভিডিওর বিবরণে এর সম্পর্কে কম কথায় পরিষ্কার করে লিখুন। লিখুন আপনি যা ভিজিটরদের জন্য বলতে চান সেটাও।
৩. শব্দ ট্যাগ করার সময় প্রথম ভাবুন আপনার ব্যবসায় ও পণ্যের সাথে রিলেটেড শব্দগুলো, তারপর লিখুন যেসব শব্দ লিখে এই বিষয়ে আগ্রহী ভিজিটর সার্চ করতে পারে সেগুলো।
৪. অতঃপর এই সময়ে যেসব শব্দ জনপ্রিয় এবং আপনার টার্গেট কাস্টমারগণ কি ধরনের সার্চ বেশী করে সেধরনের শব্দ কৌশলে প্রয়োগ করুন। এটা হয়তো সাময়িকভাবে কার্যকর বুদ্ধি।
৫. এবার আপনার এলাকা, ঠিকানা, ব্যবসার প্রকৃতি এস শব্দও ট্যাগে দিতে পারেন। দিতে পারেন আপনার নামও। তাতে কেউ আপনাকে খুঁজলে সে আপনার ব্যবসাটা খুঁজে পেয়ে যেতে পারে।
৬. আজকাল অনেকে ইংরেজির পাশাপাশি বাংলা শিরোনামও ব্যবহার করেন । কেননা দিন দিন বাংলায় সার্চ করার হার বাড়ছে। আপনি কি করবেন সেটা নির্ভর করছে আপনার কাস্টমাররা কি করতে পারে তার উপর। তবে বাংলা শব্দ ট্যাগে দিতে পারেন।
৭. দুই/একটা ভিডিও আপলোড করার পর একবার বিভিন্ন শব্দ লিখে সার্চ করে দেখুন আপনার বুদ্ধি কাজ করছে কিনা?
৮. যদি আপনার একই বিষয়ে ভিন্ন ভিন্ন একাধিক ভিডিও প্রকাশ করার প্রয়োজন হয় তবে প্রতিটার উপস্থাপনার ধরণ ও গল্প আলাদা আলাদা করুন।
৯. ভিডিও ফিচার বানিয়েও প্রকাশ করতে পারেন। সেটা এমনও হতো পারে আপনার সাথে অন্য কারো বিষয় জড়িত। যেমন ধরুন আপনি অনলাইনে জুতা বেচবেন। এখন আপনি একটা ভিডিও এমন বানাতে পারেন যাতে বাংলাদেশের বড়ো ব্রান্ড বাটা এপেক্সসহ সবাইকে এক ঝলক নিয়ে আসলেন। আপলোড করার সময় তাদের নামও ট্যাগ করলেন, এতে করে বাটার গ্রাহকের কাছেও আপনার পরিচিতি পৌছতে পারে।
১০. অথবা আপনি একেবারে সাধারণ কারণে যেমন আপনার এলাকার মসজিদটির ভাঙা ছবি দিয়ে তার জন্য অনুদান চেয়ে ভিডিও আপলোড করছেন। এতে আপনি যে ভিডিও বার্তাটি তৈরি করবেন সেটা কাবা শরীফ বা মসজিদে নববীর ছবি দিয়েও শুরু হতে পারে, কিন্তু সেটা এমনভাবে উপস্থাপন করতে হবে। অবশ্যই প্রাসঙ্গিক মনে হতে হবে। থাকতে পারে ইসলামী বিভিন্ন শব্দের ট্যাগিং।
১১. আপলোডের আগে নেটের গতি ও আপনার মডেম এর ব্যালেন্স দেখে নিন। এমন ফরম্যাটের ভিডিও আপলোড করুন সব মাধ্যমে না হোক অন্তত বেশীরভাগ এবং প্রচলিত মাধ্যম থেকে যেন দেখা যায়। এজন্য প্রয়োজনে কনভার্ট করে নিন।

ইউটিউবের ভিডিওর ব্যবহার

১. ইউটিউবের ভিডিওগুলো আপনি আপনার ওয়েব সাইটে লিংক দিয়ে রাখুন
২. ফেইসবুকসহ সামাজিক মাধ্যমে শেয়ার করুন।
৩. ইমেইল, মেসেজ ও এসএমএসে লিংক শেয়ার করুন।
৪. বিভিন্ন আর্টিকেল, প্রোডাক্টস রিভিউ, প্রেস রিলিজ এর সাথে লিংক শেয়ার করুন।
৫. বিজ্ঞাপন আকারে ইউটিউবে ছাড়–ন অথবা ফেইসবুকে বুষ্টপোস্ট করুন বা এড দিন।

সতর্কতা

১. মাঝে মধ্যে চেক করুন ভিডিও ঠিকমতো কাজ করছে কিনা? আর কতজন লোক তা দেখছে?
২. ভিডিওর ব্যাপারে কোনো ব্যক্তি কোনো মন্তব্য করছে কিনা তা দেখুন, সমালোচনা করলে বিনয়ের সহিত জবাব দিন প্রশংসা করলে ধন্যবাদ জানান।
৩. ইউটিউবে এই বিষয়ে অন্যরা কি করছে তা দেখে নিজের আইুডয়াকে সমৃদ্ধ করুন এবং নিজের অবস্থান বোঝার চেষ্টা করুন।
৪. ভিডিও সংক্রান্ত ব্যাপারে ইউটিউব কোনো পলিসি পরিবর্তন করছে কিনা তা সম্পর্কে সজাগ থাকুন।
৫. একই ভিডিও একাধিকবার পোস্ট করা থেকে বিরত থাকুন।

ভিডিওগ্রাফি টিপস এর জন্য আমার অন্য লেখাটি দেখুন: ভিডিওগ্রাফি টিপস/ Videography tips in Bangla

লিঙ্কঃ http://blog.e-cab.net

SHARE
Jahangir Alam Shovon
২০০৫ থেকে ই-কমার্স এর উপর বিভিন্ন ধরনের কাজের সাথে যুক্ত আছি ও স্টাডি করছি। এই বিষয়ে বাংলা ভাষায় অনলাইনে আমার বহু লেখা প্রকাশিত হয়েছে। এছাড়াও আমি লোকসাহিত্য, সাংবাদিকতা, ইসলাম, চলচ্চিত্র এসব বিষয়ে লিখি। বর্তমানে একটি বিদেশী চ্যারিটি সংস্থায় কর্মরত আছি।

3 টি মন্তব্য

মন্তব্য পোস্ট করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here