Homeইকমার্স জ্ঞানই-কমার্স ও আগামীদিনের কর্ম সম্ভাবনা

ই-কমার্স ও আগামীদিনের কর্ম সম্ভাবনা

জাহাঙ্গীর আলম শোভন// কখনোই নতুন কোনও ব্যবসায় বা উদ্যোগ — পথে এগিয়ে যায়না। নানা চ্যালেঞ্জ ও বাঁধাবিপত্তি পেরিয়ে একদিন আশার আলো দেখা যায়। বাংলাদেশের ক্রমবর্ধমান ই-কমার্স খাত এভাবে এগিয়ে চলেছে। এখানে একঝাঁক তরুণ প্রতিনিয়ত স্বেচ্ছাশ্রমে নিজেদেরকে স্বাধীন উদ্যোক্তা হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করার সংগ্রামে যুক্ত হয়েছে। সাথে রয়েছে নিবেদিত ই-কমার্স এসোসিয়েন অব বাংলাদেশ, ইক্যাব।

মাত্র দুইবছরের মধ্যে ই ক্যাব এখানে উদ্যোক্তাদের আস্থার জায়গা তৈরি করেছে। যদিও নানাবিধ সমস্যার কারণে এখনো লাভজনক খাত হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়নি। তবে সম্ভাবনাময় খাত হিসেবে সকলের দৃষ্টি আকর্ষণ করতে সক্ষম হয়েছে। সরকারীভাবেও এই খাত ভ্যাট ফ্রি সহ বিভিন্ন খাতে অগ্রাধিকার পেয়ে আসছে। তাই আশা করা যায় অদূর ভবিষ্যতে দেশের অর্থনীতির কিছু অংশ এই খাত নিয়ন্ত্রণ করবে। এবং তা যদি ১ শতাংশও হয় তাহলেও হাজারো তরুণের কাজের সুযোগ তৈরি হবে এখানে। তাহলে আমরা দেখি প্রত্যক্ষ, পরোক্ষ সহযোগী ও সহকারী হিসেবে কি কি কাজের সুযোগ রয়েছে এখানে।

ওয়েব ডেভেলপার:

অনেকগুলো ই-কমার্স কোম্পানি বাজারে আসলে তাদের ওয়েবসাইট উন্নয়ন এর প্রয়োজন হবে প্রয়োজন হবে ওয়েব ম্যানেজমেন্ট এর। আর কখনো এগুলো একক ব্যক্তি দ্বারা সম্ভব হয়না বিশেষ করে প্রতিষ্ঠান বড়ো হলে বা বেশীদিন টিকে থাকলে। তখন দরকার হয় মানব সম্পদ আহরণের। আর ই কমার্স ওয়েবসাইট তৈরি, ব্যবস্থাপনা ও উন্নয়নের জন্য সবসময় ওয়েব ডেভেলপার প্রয়োজন হবে।

ডেলিভারীর ম্যান:

অনেক ই-কমার্স কোম্পাপনী নিজেরা পণ্য ডেলিভারী দিয়ে থাকে আবার অনেকে কুরিয়ার কোম্পানির উপর ভরসা করে থাকেন। যেভাবেই করুক-না কেন বিজনেস বাড়ার সাথে সাথে কাজ বেড়ে যাবে আর তাতে দরকার হবে আরো বেশী লোকের এভাবে ডেলিভারী খাতেও আরো বেশী লোকের কাজের সুযোগ তৈরি হবে বলে আশা করা যায়।

কাস্টমার কেয়ার:

অনলাইন শপ বা ই কমার্সের জন্য অফিস টাইম জরুরী নয়। বিশেষ করে সেবা গ্রহীতারাই এই টাইম ফ্রেমের বাইরে সেবা গ্রহণ করতে পছন্দ করেন। ফলে এই ব্যবসায় সবসময় উদ্যোক্তাদের সেবা নিশ্চিত করার জন্য কাস্টমার কেয়ার বা কল এজেন্ট এর প্রয়োজন হবে । এতে করে তৈরি হবে কাজের সুযোগ।

কনটেন্ট রাইটার:

ই কমার্স ব্যবসায় প্রমোশন ও পণ্য বিবরণী তুলে ধরার জন্য কনটেন্ট রাইটার একজন প্রয়োজনীয় ব্যক্তিত্ব। যার কাছে যত ভালো, নির্ভুল, একক ও নতুন কনটেন্ট থাকবে। তিনি বাজারে অন্যদের চেয়ে ততটাই এগিয়ে থাকবেন। আর মানসম্পন্ন কনটেন্ট তৈরি করার জন্য প্রয়োজন হবে পেশাদার কনটেন্ট রাইটার এর। পণ্য আলোচনা, সংবাদ বিজ্ঞপ্তি, রিভিউ, ফিচার ইত্যাদি লেখার জন্য সব সময় কনটেন্ট রাইটারের প্রয়োজন হবে।

ডিজাইনার:

ই কমার্স ওয়েবসাইটের নানা ডিজাইন, এড ব্যানার, ফেসবুক পোষ্ট সহ বিষয়ে ডিজাইন ম্যাটার প্রতিনিয়ত প্রয়োজন হয় ই কমার্স প্রতিষ্ঠানে। এসব ডিজাইন যেকারো দ্বারা সম্ভব নয়। কেবলমাত্র একজন পেশাদার ডিজাইনারই পারেন কাঙ্ক্ষিত ডিজাইনের চাহিদা মেটাতে সুতরাং সব সময় প্রয়োজন হবে ভালো একজন ডিজাইনারের।

সাপ্লাই চেইন ম্যানেজার:

একটি ই কমার্স প্রতিষ্ঠানের জন্য সাপ্লাই চেইন ম্যানেজার একটি গুরুত্বপূর্ণ পদ। তিনি পণ্যের উৎস জেনে পণ্য সংগ্রহ করে ভোক্তার হাতে পৌঁছে দেয়া পর্যন্ত যাবতীয় কাজ তদারক করবেন। ছোট প্রতিষ্ঠানে অন্যকাজের লোক দিলে এই কাজ করালেও বড়ো প্রতিষ্ঠানগুলো সাপ্লাই চেইন ম্যানেজার নিয়োগ দিয়ে থাকে।

সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটার:

আমরা জানি যে, ই কমার্স এর জন্য ফেসবুক একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। বিশেষ করে আমাদের দেশে এখনো ই কমার্সের সেল ফেসবুক মার্কেটিং নির্ভর। এছাড়া গুগল, ইউটিউব, অনলাইন এড, ব্লগ লেখা এছাড়া অন্যান্য সামাজিক মাধ্যমে প্রমোট করার জন্য একটি ই- কমার্স ফার্মে একজন সার্বক্ষণিক সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটার অপরিহার্য। এখনো একজন দক্ষ মার্কেটার চাহিদা রয়েছে। কিন্তু দেশে সেরকম দক্ষ মার্কেটার খুব বেশী তৈরি হয়নি বলে ই কমার্স উদ্যোক্তাদের হিমসিম খেতে হচ্ছে।

কলসেন্টার এজেন্ট:

কলসেন্টার, কাস্টমার কেয়ার, টেলিমার্কেটিং, ইনবাউন্ট, আউটবাউন্ট কল এসবের জন্য একটি কলসেন্টার থাক বা না থাক আপনার একজন কাস্টমার কেয়ার ম্যানেজার থাকতে পারে। কোনো প্রতিষ্ঠানে রীতিমত আলাদা বিভাগ থাকে। এরা ক্রেতার ফোন কল ধরে, কখনো ক্রেতাকে ফোন করে, কখনো ফোনেই পণ্য বিক্রি করে, কখনো কাস্টমর সমস্যা সমাধান বা প্রশ্নের জবাব দেয়, কখনো শুধু তথ্য বিনিময় করে। যেভাবে কাজ করুক না কেন একজন টেলিমার্কেটার, কাস্টমার কেয়ার ম্যানেজার বা কলসেন্টার এজেন্ট আপনার প্রয়োজন হবে। আর যতবেশী ই কমার্সে লেনদেন হবে তত এধরনের লোকের চাহিদা বাড়তে থাকবে।

এছাড়া নিয়মিত অন্যান্য কর্মী যেমন ম্যানেজার, এইচআর, বিজনেস ডেভেলাপমেন্ট, মার্কেটার, সেলসম্যান, পিআরও, ওও ইত্যাদি নানা পর্যায়ে জনশক্তির প্রয়োজন হবে আগামী দিনের ই-কমার্স খাতে। আমরা কি তৈরি সে চাহিদা অনুযায়ী দক্ষ জনবল দেয়ার জন্য। অদক্ষ ও অপেশাদার দশজন কর্মীর চেয়ে নিবেদিত ও পরিশ্রমি দুইজন করমিকে উদ্যোক্তাদের বেশী কাম্য নয়। কর্মী তৈরি হলে একজন উদ্যোক্তার কাছে কাজের ভালো বিনিময় না পেলে অন্য একজন এর কাছে পাবে, কিন্তু যদি কাজের লোকটিই না তৈরি হয় তাহলে বিনিময় কাকে দেবে?

RELATED ARTICLES
- Advertisment -spot_img

Most Popular