Homeসংবাদ বিজ্ঞপ্তিই-ক্যাব মেম্বারদের জেনারেল মিটিং ও সার্টিফিকেট প্রদান অনুষ্ঠিত

ই-ক্যাব মেম্বারদের জেনারেল মিটিং ও সার্টিফিকেট প্রদান অনুষ্ঠিত

আজ শনিবার (১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৫) রাজধানীর ড: কুদরত-ই-খুদা অডিটোরিয়ামে ই-কমার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ই-ক্যাব) সদস্যদের সদস্য সনদ প্রদান অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক।

অল্প কয়েকজন সদস্য নিয়ে এক বছর আগে যাত্রা শুরু করে ই-ক্যাব ও মাত্র এক বছরের ব্যবধানে বর্তমানে এর সদস্য প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা ২৩০। আজ এসব প্রতিষ্ঠানকে সনদ প্রদান করা হয়।

জনাব পলক তার বক্তব্যে বলেন শুধু বাংলাদেশ নয়, বিশ্ব বাজারকে বিবেচনায় এনে ই-কমার্স খাতে বিনিয়োগ করতে হবে। দেশের বাইরের বাংলা ভাষাভাষী মানুষকেও টার্গেট করতে হবে। তিনি আরও বলেন, গত ছয় বছরে দেশের মানুষ ই-কমার্স সম্পর্কে একটা ভাল ধারণা পেয়েছে। সঠিক সেবা দিয়ে সেই ধারণাকে আরও পাকাপোক্ত করতে হবে। আমাদের ছেলে-মেয়েদের মেধা আছে। এরা একদিন পৃথিবীর বড় বড় কোম্পানির মতো কোম্পানি গড়ে তুলবে। আমাদের ১ কোটি প্রবাসী রয়েছে যাদেরকে সামনে রেখে আমাদের কাজ করতে হবে।

ডেলিভারি আরও সহজ করার প্রয়োজনীয়তা তুলে ধরে তিনি আরো বলেন, “আমাদের ইউনিয়নগুলোতে সাড়ে চার হাজার ডিজিটাল সেন্টার রয়েছে। আমরা এগুলোকে ই-কমার্সের আউটলেট হিসাবে তৈরি করতে পারি। ডেলিভারির বিষয়ে ব্যবহার করতে পারি ডাক বিভাগকে।”

আরও পড়ুনঃ বিশিষ্ট অভিনেত্রী শমী কায়সার ই-ক্যাবের উপদেষ্টা হিসেবে যোগ দিয়েছেন

সনদ পাওয়া প্রতিষ্ঠানগুলো যাতে সঠিক সেবা দিতে পারে সে জন্য নজরদারিও করবে বলেও জানিয়েছে ই-ক্যাব। সেজন্য তারা একটি অথেনটিকেশন প্রসেস চালু করেছে যার মাধ্যমে সাইট এর মালিকেরা একটি কোড তাদের সাইটে বসাবেন যেখান থেকে তাদের ভেরিফিকেশন করা যাবে।

ই-ক্যাবের সভাপতি রাজীব আহমেদ তার বক্তব্যে ই-কমার্সের কিছু সমস্যার কথা বলেন। তিনি জানান, ই-কমার্সের শতকরা ৮৫ শতাংশ সমস্যা কুরিয়ার নিয়ে ও এ সমস্যা সমাধানে প্রতিমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।

সনদ প্রদান অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব আব্দুল মান্নান জানান, শুধু সদস্য না বাড়িয়ে ই-কমার্স সেবা প্রদানের মানের দিকে নজর দেওয়া জরুরি।

ই-ক্যাবের যুগ্ম সচিব রেজওয়ানুল হক জামী’র সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন সংসদ সদস্য নাহিম রাজ্জাক, এফবিসিসিআই সভাপতি আবদুল মাতলুব আহমেদ, বিসিএসআইআর চেয়ারম্যান মোঃ. নজরুল ইসলাম, বাংলাদেশ কম্পিউটার সমিতির সাবেক সভাপতি ও আনন্দ কম্পিউটারের প্রধান নির্বাহী মোস্তাফা জব্বার, এশিয়ান-ওশেনিয়ান কম্পিউটিং ইন্ডাস্ট্রি অর্গানাইজেশনের (এএসওসিআইও) চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ এইচ কাফি, ধানসিঁড়ি কমিউনিকেশন লি. এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক শমী কায়সার।

RELATED ARTICLES
- Advertisment -spot_img

Most Popular